ম্যাচ চলাকালে আজান শুনে মাঠেই ফুটবলারদের ইফতার

স্পোর্টস ডেস্ক :

রোজা রেখে মাঠে খেলার ঘটনা পুরনো। তবে এটি নতুন করে সাড়া জাগিয়েছে তুরস্কের ঘরোয়া ফুটবল লিগের একটি ঘটনায়। আঙ্কারায় রোজা রেখে ফুটবল খেলেন বেশ কয়েকজন মুসলিম ফুটবলার। ম্যাচ চলাকালে মাঠের সাইডলাইনে বসে ইফতার করলেন। মুহূর্তেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোড়ন ফেলে ওই ইফতার করার ভিডিওটি।

সৃষ্টিকর্তা রমজান মাসকে মানব জাতিকে দিয়েছেন পাপ মোচনের মাস। মাহে রমজানে সারা বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায় দুই হাত উঠিয়ে উন্মুখ হয়ে থাকে খোদার কাছে একটু পানাহার জন্য। পেশাগত কাজের বাইরে খেলোয়াড়রাও সিয়াম সাধনায় ব্রত হন। মুসলিম বিশ্বের অনেক দেশে এই সময় চলছে ঘরোয়া ফুটবল টুর্নামেন্ট। কিন্তু মুসলিম ফুটবলাররা রোজা রেখেই মাঠে পেশাদার ফুটবল খেলছেন। মাঠেই সেরে নিচ্ছেন ইফতার।

তুরস্কের দ্বিতীয় বিভাগ ফুটবলে দেখা মিলল এমনই এক দৃশ্যের। রাজধানীর খেলা চলছিল জিরেসুন স্পোরের ও আঙ্কারা কেচিওরেনগুজুরের মধ্যে । মাগরিবের আজান পড়তেই খেলা থামিয়ে ইফতার সেরে নেন আঙ্কারা কেচিওরেনগুজুরের কিছু মুসলিম ফুটবলাররা। ফুটবলারদের ইফতারের সময়টুকু মাঠে খেলা বন্ধ রাখেন রেফারি। মুখে খুরমা-খেজুর, কলা আর জুস দিয়ে রোজা ভাঙেন ফুটবলাররা। মাঠে ক্যামেরার লেন্স ঠিকই খুঁজে নেয় এই দৃশ্য। মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

ম্যাচটি অবশ্য আঙ্কারা কেচিওরেনগুজুর ২-১ গোলে হেরে যায়। তবে এই ঘটনা তীব্র দাগ কাটে মুসলিম বিশ্বের মানুষের মাঝে।

অবশ্য রোজা রেখে খেলার ঘটনা প্রথম নয়। তিউনিশিয়া ২০১৮ বিশ্বকাপ প্রস্তুতি ম্যাচের সময় রমজান মাস চলছিল। তখন খেলার ফাঁকে সবাইকে কৌশলে ইফতার করতে দেখা যায়।

ক্রিকেটেও আছে এমন অনেক ঘটনা। ২০১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে বাংলাদেশের মিশন শুরু হয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে। সেই ম্যাচে রোজা রেখে খেলেন মুশফিকুর রহিম, রিয়াদ ও মেহেদী হাসান মিরাজ। ম্যাচটি বাংলাদেশ জিতে বড় ব্যবধানে।

এ ছাড়া নিয়মিত রোজা রেখে হরহামেশায় খেলেন মেসুত অজিল, মইন আলী, হাশিম আমলারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *